Header Border

ঢাকা, শুক্রবার, ১৯শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ (গ্রীষ্মকাল) ২৯.৯৬°সে

গৃহকর্মী সুইটিকে নির্যাতনের অভিযোগে গ্রেফতার দম্পতি কারাগারে

*সময় সংবাদ লাইভ রির্পোটঃ গৃহকর্মী সুইটি নামে ১২ বছরের নির্যাতনের অভিযোগে গ্রেফতার দম্পতি কারাগারেপাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।তারা হলেন- গৃহকর্তা মো. তানভির আহসান ও তার স্ত্রী অ্যাডভোকেট নাহিদ। গতকাল রোববার তাদের ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। এরপর ৫৪ ধারায় গ্রেফতার দেখিয়ে তাদের কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা।
অন্যদিকে, তাদের আইনজীবীরা জামিনের আবেদন করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম শাহিনুর রহমান তাদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এর আগে শনিবার ওই বাসার এক প্রতিবেশী মেয়েটির শরীরে আঘাতের চিহ্নসহ কিছু ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট করেন। পোস্টে তিনি দ্রুত সহযোগিতা ও আইনি ব্যবস্থার আর্জি জানান। এরপর তাদের গ্রেফতার করে পুলিশ। ছবিতে মেয়েটির চোখের নিচে আঘাতের চিহ্ন, হাতে গুরুতর জখম এবং আরেকটি ছবিতে মেয়েটির শরীরের পেছেন দিকে আগুনে পোড়া ঘা চোখে পড়ে। পোস্টটি চোখে পড়ে একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের এক নারী সাংবাদিকের। তিনি পোস্টটি বাংলাদেশ পুলিশের মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স উইংকে পাঠিয়ে দ্রুত সহযোগিতার আহ্বান জানান।
পুলিশ সদর দফতরের এআইজি (মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স) মো. সোহেল রানা বলেন, ঘটনাস্থল কোন থানার অধীনে তা তাৎক্ষণিকভাবে নিশ্চিত না হওয়ায় মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স উইং বিষয়টি জানার সঙ্গে সঙ্গে রমনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুল ইসলাম ও শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মওদুত হাওলাদারের সঙ্গে যোগাযোগ করে এ বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেয়া হয়। উভয় থানা থেকেই ঘটনাস্থলে একটি করে টিম যায়। পরবর্তীতে জানা যায়, ঘটনাস্থলটি শাহবাগ থানার অধীনে। এরপর শাহবাগ থানার ওসি মওদুত হাওলাদারের তাৎক্ষণিক তৎপরতায় সেখানকার ইন্সপেক্টর (অপারেশন্স) মো. কামরুজ্জামানের নেতৃত্বে উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. জাহাঙ্গীর আলমসহ পুলিশের একটি টিম মেয়েটিকে উদ্ধার করে এবং নির্যাতনের অভিযোগে গৃহকর্তা মো. তানভির আহসান ও তার স্ত্রী অ্যাডভোকেট নাহিদকে গ্রেফতার করে। এআইজি সোহেল রানা আরও বলেন, ফেসবুকে দেয়া পোস্টের মাত্র দেড় ঘণ্টার মধ্যে এবং বিষয়টি পুলিশের নজরে আসার এক ঘণ্টার মধ্যেই ভুক্তভোগীকে উদ্ধার ও অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা হয়। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন। এ বিষয়টি কোনো এক সচেতন নাগরিক ৯৯৯-কেও ফোন করে জানায়। পরে ৯৯৯ থেকেও থানার সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়।
মানববন্ধন: তোপখানা রোডে শিশু গৃহকর্মী সুইটিকে নির্যাতনের অভিযোগে আটক গৃহকর্তা তানভির আহসান ও তার স্ত্রী অ্যাডভোকেট নাহিদার শাস্তি দাবি করেছে এলাকাবাসী। মানববন্ধনে অর্ধশতাধিক নারী ও পুরুষ অংশ নেন। তাদের দাবি, গৃহকর্মী সুইটিকে তারা প্রায়ই নির্যাতন করত। এজন্য মানববন্ধনে সুষ্ঠু তদন্তের দাবি জানানো হয়। গতকাল বিকেলে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সামনে এলাকাবাসীর ব্যানারে আয়োজিত মানববন্ধনে এসব দাবি জানানো হয়। মানববন্ধনে এলাকাবাসী ছাড়াও বিভিন্ন বাসা-বাড়িতে কর্মরত গৃহকর্মীরা অংশ নেন। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, নির্যাতনের শিকার শিশু গৃহকর্মী সুইটি। তার বাড়ি কিশোরগঞ্জের মিঠামইন থানার নবাবপুর থানায়। সে ৯ মাস ধরে তানভির আহসান ও তার স্ত্রী অ্যাডভোকেট নাহিদা দম্পতির ঘরে গৃহকর্মীর কাজ করছে। তারা বলেন, প্রতিদিনই তাকে নানা অজুহাতে মারধর করা হতো। মেয়েটিকে ধর্ষণও করা হয়ে থাকতে পারে। কারণ ধর্ষণের আলামত ঢাকতে মেয়েটির যোনীতে রুটি তৈরি করার বেলন দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। মানববন্ধনে অংশ নেয়া ফরিদা ইয়াসমিন বলেন, আমরা নারী ও শিশু নির্যাতনের উপযুক্ত বিচার চাই। এসব নির্যাতনকারীর কারণে আমরা গৃহকর্মী পাই না। তাদের আইনের মাধ্যমে উপযুক্ত শাস্তির দাবি জানাই। সুইটি বর্তমানে পুলিশ হেফাজতে। এ ঘটনায় গ্রেফতার করা হয়েছে নির্যাতনকারীদের।

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন

রাজউকের নতুন চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল(অব.)সিদ্দিকুর রহমান
পেশাদার নিবন্ধিত অনলাইন পোর্টালই থাকবে: তথ্য প্রতিমন্ত্রী
দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ বড় চ্যালেঞ্জ: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
ওষুধের দামে নাভিশ্বাস
মির্জা ফখরুল-খসরুর ‘প্রোডাকশন ওয়ারেন্ট’ প্রত্যাহার, আজই মুক্তি
মানবতাবিরোধী অপরাধে ৩ আসামির আমৃত্যু কারাদণ্ড

আরও খবর