Header Border

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ (বর্ষাকাল) ২৭.৯৬°সে

শুরু হলো পবিত্র মাহে রমজান


সময় সংবাদ লাইভ রিপোর্ট: বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের কারণে মহাদুর্যোগের মধ্যে মহান শুভাগমন করল হিজরি ১৪৪১ সালের মাহে রমজানুল মোবারক। উম্মতে মুহাম্মাদির জন্য অপরিসীম প্রতিদান লাভের উদ্দেশ্যে ইবাদত ও নেক আমলের মৌসুম রমজান মাস। রমজানের পুরো মাস সিয়াম পালন করা ইসলামের পঁচাটি মৌলিক বিষয়ের একটি। আল্লাহর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মদিনায় হিজরত করে যাওয়ার দ্বিতীয় বছরে রমজানের সিয়াম পালনের বিধান নিয়ে নাজিল হয় কুরআন মজিদের সূরা বাকারার ১৮৩ নম্বর আয়াতটি। ঘোষণা করা হয়, হে মুমিনরা, তোমাদের প্রতি সিয়াম পালন আবশ্যিক করা হলো যেমন তা আবশ্যিক করা হয়েছিল তোমাদের আগে যারা ছিল তাদের প্রতি, যাতে তোমরা মুত্তাকি হতে পারো।

হজরত সালমান ফারসী রাজিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, শাবান মাসের শেষ ভাগে একদিন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের উদ্দেশে ভাষণ দিলেন। বললেন, লোকেরা, তোমাদের ওপর এসে পড়েছে এক মহান মাস, বরকতময় মাস। এ মাসে একটি রাত রয়েছে যা এক হাজার মাসের চেয়ে শ্রেষ্ঠ। আল্লাহ তায়ালা এ মাসের সিয়াম ফরজ ও (ইবাদতের উদ্দেশ্যে) রাতে জেগে থাকা ঐচ্ছিক করেছেন। এতে যে ব্যক্তি কোনো নেক কাজের মাধ্যমে আল্লাহর নৈকট্য লাভের চেষ্টা করবে, তার জন্য থাকবে অন্য মাসে একটি ফরজ আদায়ের সমান প্রতিদান। আর যে ব্যক্তি এতে একটি ফরজ আদায় করবে, তার জন্য থাকবে অন্য মাসে সত্তরটি ফরজ আদায়ের সমান প্রতিদান। যে ব্যক্তি কোনো রোজাদারকে ইফতার করাবে, তার জন্য রয়েছে পাপ মোচন ও জাহান্নাম থেকে মুক্তি এবং রোজাদারের মতোই তাকে প্রতিদান দেয়া হবে। কিন্তু রোজাদারের প্রতিদান কমানো হবে না। প্রশ্ন করা হলো, হে আল্লাহর রাসূল, রোজাদারকে ইফতার করানোর মতো সামর্থ্য আমাদের প্রত্যেকের নেই।

Ad by Valueimpression

তিনি বললেন, যে কেউ কোনো রোজাদারকে একটু দুধ, একটি খেজুর কিংবা একটু পানীয় দিয়ে ইফতার করাবে, তাকেই আল্লাহ তায়ালা এ প্রতিদান দেবেন। আর যে ব্যক্তি কোনো রোজাদারকে তৃপ্ত করে আহার করাবে, আল্লাহ তায়ালা তাকে হাউজে কাওছার থেকে পানি পান করাবেন। এ মাসের প্রথম ভাগে রহমত, মধ্যভাগে মাগফিরাত ও শেষভাগে রয়েছে জাহান্নাম থেকে মুক্তি। এটা ধৈর্যের মাস। আর ধৈর্যের প্রতিদান জান্নাত। এটা সমবেদনার মাস। এ মাসে মুমিনের রিজিক বাড়িয়ে দেয়া হয়। যে ব্যক্তি তার অধীনস্থের কাজের ভার লাঘব করবে, আল্লাহ তাকে ক্ষমা করবেন এবং জাহান্নাম থেকে মুক্তি দেবেন। এ মাসে তোমরা চারটি কাজ বেশি করবে। প্রথমত দুইট কাজ দ্বারা তোমরা তোমাদের প্রভুকে সন্তুষ্ট করবে । তা হলো কালেমায়ে তাইয়েবা ও ইস্তেগফার অধিক মাত্রায় পাঠ করা। আর দুইটি বিষয় হলো বেশি করে জান্নাত প্রার্থনা ও জাহান্নাম থেকে মুক্তি কামনা। (বায়হাকি শরিফ)

বিএনপির শুভেচ্ছা বাণী : নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে বাংলাদেশসহ সারা বিশে^র মুসলিম জাতিকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে এক বাণীতে বিএনপি বলেছে- পবিত্র মাহে রমজান সমগ্র মুসলিম উম্মাহর জন্য রহমত, বরকত ও নাজাতের মাস হিসেবে সম্মানিত। তাই মুসলিম উম্মাহ পরম করুণাময় আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের সন্তুষ্টি লাভে নিজেদের নিয়োজিত রাখতে সচেষ্ট হন। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বাণী দিয়েছেন।

জিএম কাদেরের বাণী : জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের বলেছেন, পবিত্র মাহে রমজান হচ্ছে আমাদের জন্য অসীম নেয়ামত। এই মাসেই নিহিত আছে মহান আল্লাহতায়ালার নৈকট্য ও ক্ষমা লাভের সুযোগ। পবিত্র রমজানেই আমরা পেতে পারি রহমত, মাগফিরাত ও নাজাতের ফয়সালা। পরম করুণাময়ের ইবাদতে আমরা সংযম, ত্যাগ ও ভ্রাতৃত্বের শিক্ষা লাভ করি। গতকাল শুক্রবার পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে দেয়া এক বাণীতে সংসদে বিরোধী দলীয় এই উপনেতা এসব কথা বলেন।
জিএম কাদের বলেন, ‘রহমত, বরকত, মাগফিরাত ও নাজাতের মহিমান্বিত মাহে রমজান সমাগত। পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষ্যে আমি দেশবাসীকে আন্তরিক মোবারকবাদ জানাচ্ছি। বিশে^র সকল মুমিনের জন্য আমার আন্তরিক অভিনন্দন। এ উপলক্ষ্যে আমি মুসলিম উম্মার শান্তি, সম্প্রীতি, সম্বৃদ্ধি ও সংহতি কামনা করছি।

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন

হজে গিয়ে ১০ বাংলাদেশির মৃত্যু
কর ও ভ্যাটের চাপ আরও বাড়বে
ইসরাইলের সামরিক ঘাঁটিতে ভয়াবহ ড্রোন হামলা হিজবুল্লাহর
ফিলিস্তিনকে স্বীকৃতি দিতে সব দেশের প্রতি আহ্বান জাতিসংঘের
মোদি না রাহুল, কে হচ্ছেন ভারতের কান্ডারি?
ঢাকার কাছেই চলে এসেছে সবচেয়ে বিষধর রাসেলস ভাইপার

আরও খবর