Header Border

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ (বর্ষাকাল) ২৭.৯৬°সে

শেখ হাসিনা সরকার এগিয়ে যাবে রূপকল্প ৪১’র দিকেঃবিরোধী মতের রাজনৈতিক পরিকল্পনা প্রয়োজন

সময় সংবাদ রিপোর্টঃ বাংলাদেশের জনগণের জন্য নভেম্বর-ডিসেম্বর২০২৩ জানুয়ারি ২০২৪এই তিনটি মাস অত্যন্ত বিপদ সীমার মাস। এই তিন মাসে একটু বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিয়ে চলতে পারলে এবং একটু মিতব্যয়ী হলে অনেকটা বিপদ থেকে নিরাপদে থাকা যাবে। আর এই জন্য দায়ী বাংলাদেশের রাজনীতিবিদরা। রাজনীতিবিদদের সময়োপযোগী পরিকল্পনার অভাব সমন্বয়ে হীনতার অভাব। শুধু ফাঁকা আওয়াজ দিয়ে চালিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশের রাজনীতি সাথে আছে মিথ্যাচার। পুলিশের সিদ্ধান্ত নিয়ে যদি রাজনীতি করতে হয় তাহলে বাংলাদেশের রাজনীতিবিদদের রাজনীতি ছেড়ে দেওয়া উচিত।

রাজনীতিবিদরা রাজনীতি করবে তাদের নিজস্ব পরিকল্পনার আলোকে পুলিশকে অবহিত করবে আইনশৃঙ্খলা সহযোগিতা করার জন্য। যার দৃষ্টান্ত হলো মহাসমাবেশ গুলোকে পুলিশ শর্ত দিয়ে দেয় সেই শর্ত মেনে বিরোধী রাজনীতির দলগুলো তাদের সভা সমাবেশ পালন করে এমনকি ব্যক্তিগত আত্মরক্ষার জন্য তারা কোন ধরনের প্রস্তুত থাকে না। বিপরীতে শান্তি সমাবেশে পুলিশের শর্ত তোয়াক্কা না করে তাদের আত্মরক্ষা এবং শত্রু বাহিনীকে দমন করার জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি থাকে। বিরোধী রাজনীতিবিদদের বোঝা উচিত যে মুখোমুখি সমরযুদ্ধ অথবা মুখোমুখি যে কোন লড়াই আত্মরক্ষার জন্য প্রতিপক্ষকে ফায়ারিং ইসলামের দৃষ্টিতে ওয়াজিব দেশের প্রচলিত আইন এটাকে সমর্থন করে। যার বড় একটি উদাহরণ আজ থেকে ১৪০০ বছর আগে বিশ্ব রাষ্ট্র নায়ক হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) যখন মক্কা বিজয়ের অভিযান পরিচালনা করেছেন তখন ১০হাজার সৈন্যবাহিনীকে ১০টি প্লাটুনে ভাগ করেছেন। তিনি জানিয়ে দিয়েছেন আজকে আমার শেষ অভিযান আজকে যারা আমার সাথে শান্তি চুক্তি করবে তারা নিরাপদ থাকবে দুর্বল নারী নিষ্পাপ শিশু বৃদ্ধ এবং রাষ্ট্রীয় সম্পদ ব্যক্তিগত সম্পদ নিরাপদ থাকবে। এমনকি ঐ সময় যে সমস্ত মক্কাবাসী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে মুখোমুখি যুদ্ধ করেছে ইতিহাস সাক্ষ্য দিচ্ছে তাদের ২০ জন মুখোমুখি লড়াইয়ে মৃত্যুবরণ করেছে অবশেষে নবীজি (সঃ)মক্কা বিজয় করে কালেমার পতাকা উড়িয়েছেন। গঠন করেছেন ইসলামী প্রজাতন্ত্র রাজধানী করেছেন মদিনায়। এর কার্বন কফি আমেরিকার সাবেক রাষ্ট্রনায়ক আব্রাহাম লিংকন তিনি গণতন্ত্র উপহার দিয়েছেন সে গণতন্ত্র আজকে সারা বিশ্বে বহমান। কিন্তু ইসলামী প্রজাতন্ত্র এর মূলনীতি সর্বশক্তিমান আল্লাহ সকল ক্ষমতার উৎস এবং সংবিধান হচ্ছে আল কুরআন আর গণতন্ত্র হচ্ছে মানুষের গড়া মতবাদ এখানে জনগণকে মূল ক্ষমতার উৎস বলা হয়েছে অর্থাৎ সম্পূর্ণ আলাদা।
এবার আসি বাংলাদেশের রাজনীতি দীর্ঘ অনেকদিন যাবত বাংলাদেশে গণতন্ত্র অনুপস্থিত কিন্তু চলমান সরকার উন্নয়নের ঢাক ঢোল পিটিয়ে গণতন্ত্রকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে রূপকল্প ৪১ এর দিকে এগিয়ে চলছে তাকে প্রতিরোধ করার সক্ষমতা বিরোধী শক্তির হাতে অনেকটা দুর্বল। ইউনিয়ন পরিষদের চৌকিদার থেকে শুরু করে মন্ত্রীর পরিষদের সচিব পর্যন্ত শেখ হাসিনা সরকারের সেটআপের অন্তর্ভুক্ত এখানে বিরোধী রাজনৈতিক দলদের বোঝা উচিত কি ধরনের পরিকল্পনা দরকার। ইতিমধ্যে ২৮ তারিখে বিএনপির মহা সমাবেশের পর থেকে বাংলাদেশে হরতাল অবরোধ চলছে এতে করে সাধারণ জনগণের জান ও মালের ক্ষতি হয়েছে একজন পুলিশ কনস্টেবল মৃত্যুবরণ করেছে যুবদলের একজন নেতা মৃত্যুবরণ করেছে সারাদেশে হাজার হাজার নেতাকর্মী বন্দী গৃহ ছাড়া। সরকারের দলীয় কর্মী বাহিনী এবং পুলিশ বাহিনীর অত্যাচারে কেউ নিজ ঘরে ঘুমাতে পারছে না। এ অবস্থা চলতে থাকলে বাংলাদেশ সাধারণ মানুষ একটা সময় রাজনৈতিক দিমুখ হয়ে যাবে একদিকে যেমন বাজার লাগামহীন দারিদ্র্ মানুষের দৈনন্দিন নিত্য পণ্য ক্রয় করতে হিমশিম খাচ্ছে অন্যদিকে রাজনৈতিক উদ্বুদ্ধ পরিস্থিতি প্রতিনিয়ত উত্তেজনা বাড়িয়ে দিচ্ছে।
সম্প্রীতি সময়ে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের আহবানে নির্বাচন কমিশন নিবন্ধিত ৪০টি দলের মধ্যে ২৫টি দল সংলাপে অংশগ্রহণ করেছে অংশগ্রহণ করেনি ১৫টি দল। উক্ত সংলাপে উপস্থিত ২৫ টি দল একই মত পোষণ করেছেন গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে হলে তত্ত্ববোধক সরকার অথবা জাতীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হতে হবে সংসদ ভেঙে দিতে হবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে পদত্যাগ করতে হবে। কিন্তু নির্বাচন কমিশনের একঘেয়ামী মন্তব্য এবং সরকারদলীয় একই মন্তব্য হওয়ার কারণে জাতি হতাশ।
এ অবস্থায় বিরোধী দলগুলোর রাজনৈতিক প্রয়োজনে তারা অবরোধ গাড়ি ভাঙচুর সাধারণ মানুষের জান ও মাল নিরাপত্তার স্বার্থে এ ধরনের কর্মসূচি প্রত্যাহার করা উচিত এবং যদি তাদের সক্ষমতা থাকে তাহলে রাজপথে ধারাবাহিকভাবে সকল দল গুলো একত্র হয়ে ঢাকার রাজপথে কমপক্ষে ৩ দিন গণঅভ্যুত্থান ঘটিয়ে দেখানো উচিত জনগণের ভোটবিহীন সরকার গণতন্ত্র বিহীন সরকার এবং কোন উন্নয়নই একটি উন্নয়নশীল রাষ্ট্রকে আদর্শিকভাবে জনগণের জন্য কল্যাণ আনতে পারেনা।
অপরদিকে বিএনপির কপালে চরম দুঃখ রয়েছে কেননা তারেক রহমানের রাজনীতি এবং লন্ডনের রাজনীতি অনেকটা হাসোসকার রূপে পরিণত হয়েছে যার উদাহরণ বিভাগীয় শহরে চলমান হরতাল অবরোধে ফুটে উঠেছে। বরিশাল বিভাগীয় শহরে হরতালের পক্ষে মিছিল করতে দিয়ে ৫ মিনিটের মধ্যে পুলিশের হাতে গ্রেফতার এই ঘটনা এই ঘটনা রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের অনেকটা ভাবিয়ে তোলে। যারা বিএনপি’র হাইব্রিড এবং অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী এবং খালেদা জিয়ার লোক তাদেরকে তারেক রহমান পথ বঞ্চিত করে অবহেলা এবং লাঞ্ছনা বঞ্চনায় রেখেছে। যাদেরকে তারেক রহমান দায়িত্ব দিয়েছে তারা এই রাজনৈতিক ক্রাইসিস মুহূর্তগুলো ফেইজ করা সক্ষমতা রাখেনা। অনুরূপ আন্তর্জাতিক বিশ্বের স্যাংশন ভিসা নীতি মার্কিন প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা রাষ্ট্রদূত এ সব কিছু যদি ফেক আইডি হয় তাহলে বিএনপি চরম দুর্ভোগে পড়তে হবে। এই মুহূর্তে বাংলাদেশের রাজনীতিতে খালেদা জিয়া বন্দি তারেক রহমান পলাতক প্রবাসী কিন্তু ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের জন্য একটা উর্বর স্পেস তৈরি হয়েছে যদি তারা রাজনীতি বোঝে এবং ভালোভাবে এই মুহূর্তে সকল পরিপক্ষ রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত কর্মসূচি নিতে পারে তাহলে বিরোধী সকল রাজনৈতিক দলগুলোর জন্য তিনি একটি অভিভাবককে পরিণত হতে পারবেন। এরকম একটি প্রত্যাশা জনগণের মাঝে বিরাজ করছে।

লেখক কলামিস্ট সাংবাদিক মুহাম্মদ শাহজালাল হাওলাদার,বরিশাল ব্যুরোপ্রধান সময় সংবাদ লাইভ,ব্যুরোচীফ জাতীয় দৈনিক পূর্বাভাস বরিশাল,সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার দৈনিক বাংলাদেশ বাণী।। মুঠোফোন ০১৭১২৬৮৩০১২

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন

ইসলামের দৃষ্টিতে প্রতিবেশীর প্রতি দায়িত্ব ও কর্তব্য
ইসলাম মানবিকতা,উদারতা ও মহানুভবতার ধর্ম
রমজান সংযম শেখায়,নামাজ শেখায় কল্যাণ
উন্নত সমাজ গঠনে সামাজিক সংগঠনের বিকল্প নেই
উন্নত সমাজ গঠনে সামাজিক সংগঠনের বিকল্প নেই
শেখ হাসিনা সরকার এগিয়ে যাবে রূপকল্প ৪১ এর দিকেঃবিরোধী মতের রাজনৈতিক পরিকল্পনা প্রয়োজন

আরও খবর