Header Border

ঢাকা, সোমবার, ১৫ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ (গ্রীষ্মকাল) ২৮.৯৬°সে

শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে বড় ব্যবধানে জিতল বাংলাদেশ

*সময় সংবাদ লাইভ রির্পোটঃ আরো বড় ব্যবধানে হারল সফরকারী অস্ট্রেলিয়া। গতকাল শেষ ম্যাচে জয় দিয়ে বাংলাদেশ সফর শেষ করতে চেয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু এই ম্যাচেই অস্ট্রেলিয়াকে ৬০ রানের বিশাল ব্যাবধানে হারিয়ে জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। এই জয়ের ফলে ৫ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে বাংলাদেশ সিরিজ জিতে নিল ৪-১ ব্যবধানে। গতকাল ব্যাটে বলে বাংলাদেশের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি অস্ট্রেলিয়া। আগে ব্যাট করে বাংলাদেশ ৮ উইকেটে করে ১২২ রান। জয়ের জন্য অস্ট্রেলিয়ার সামনে টার্গেট ছিল ১২৩ রান। ব্যাট করতে নেমে টাইগার বোলারদের বোলিং আক্রমনে মাত্র ৬২ রানে গুটিয়ে যায় অস্ট্রেলিয়ার ইনিংস। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে এটিই অস্ট্রেলিয়ার সর্বনিম্ন স্কোর। ফলে শেষ ম্যাচে বাংলাদেশ জয় পায় ৬০ রানে। বাংলাদেশের পক্ষে সাকিব আল হাসান একাই নিয়েছেন ৪ উইকেট। আর এতেই টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে শততম উইকেট নেয়ার রেকর্ড গড়লেন সাকিব। সাকিব আল হাসানই হয়েছেন ম্যান অব দ্যা ম্যাচ ও সিরিজ। জয়ের জন্য অস্ট্রেলিয়ার সামনে টার্গেট ছিল ১২৩ রান। শেষ ম্যাচে জয় পেতে ওপেনিংয়ে পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নেমেছিল অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু ব্যাট করতে নেমে শুরুটাই ভালো করতে পারেনি দলটি। আগের ম্যাচে সাকিব আল হাসানকে এক ওভারে পাঁচ ছক্কা মেরেছিলেন ড্যান ক্রিস্টিয়ান। ব্যাটিং অর্ডারে তাকেই নামানো হয়েছিল। কিন্তু নাসুম আহমেদের ঘূর্ণিতে শুরুতেই বিদায় নিয়েছেন ক্রিস্টিয়ান। নাসুম বোল্ড করে মাত্র ৩ রানে থামিয়েছেন ক্রিস্টিয়ানকে। ফলে ৩ রানে প্রথম উইকেট হারায় অস্ট্রেলিয়া। পরের ওভারে এসে নাসুম তুলে নেন এই সিরিজে অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে ধারাবাহিক ব্যাটসম্যান মার্শকে। ইনিংসের চতুর্থ ওভার মিচেল মার্শকে এলবিডব্লিউ করেন নাসুম। রিভিউ নিয়েও বাঁচতে পারেননি ৪ রান করা মার্শ। দলের এই বিপদে হাল ধরতে চেয়েছিলেন অধিনায়ক ম্যাথু ওয়েড ও ম্যাকডরমট। অধিনায়ক ওয়েড শুরুটা করেছিলেন ভালো ভাবেই। কিন্তু দলীয় ৩৮ রানে ফিরতে হয় তাকেও। সাকিবের বলে বোল্ড আউট হওয়ার আগে ওয়েড করেন ২২ বলে ২২ রান। দলের পক্ষে এইট সর্বোাচ্চ স্কোর। দলীয় ৪৮ রানে দলটি হারায় চতুর্থ উইকেট। এবার মাহমুদুল্লাহ‘র বলে আউট হয়ে মাঠ ছাড়েন ম্যাকডরমট। দলীয় ফিফটি রানের আগে প্রথম চার ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে চাপেই পড়ে অস্ট্রেলিয়া। এই চাপ থেকে দলকে আর এগিয়ে নিতে পারেনি কোন ব্যাটসম্যান। টাইগার বোলারদের বোলিং আক্রমনে আসা-যাওয়ায় ব্যাস্ত ছিলেন পরের ব্যাটসম্যানরা। ফলে দলীয় ৫৯ রানেই দলটি হারায় নবম উইকেট। ব্যাট করতে নেমে ডাবল ফিগারে রান তুলতে পারেননি অ্যালেক্স ক্যারে, অ্যাস্টন টার্নার,নাথান এলিস, হেনরিকুইস, সুইপসন আর জাম্পারা। ফলে ৬২ রানেই অলআউট হয় অস্ট্রেলিয়া। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে এটাই সবচেয়ে কম রানের স্কোর অস্ট্রেলিয়ার। দলটি খেলতে পারেনি পুরো ২০ ওভার। ১৩.৪ ওভারেই অলরআউট হয়েছে দলটি। ফলে শেষ ম্যাচে ৬০ রানের বড় জয় পায় বাংলাদেশ। বাংলাদেশের পক্ষে সাকিব আল হাসান একাই নিয়েছেন ৪ উইকেট। সাইফুদ্দিন তিনটি আর নাসুম আহমেদ নেন ২টি উইকেট। এই ম্যাচে ৪ উইকেট নিয়ে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে উইকেটের সেঞ্চুরি পূরণ করেছেন সাকিব। এর আগে, টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১২২ রান করে বাংলাদেশ। ওপেনিং জুটিতে মাত্র ২৭ বলে ৪২ রান করলেও শেষ পর্যন্ত বড় স্কোর গড়তে পারেনি টাইগাররা। বাংলাদেশের স্কোর থামে ১২২ রানে। সৌম্য সরকারের পরিবর্তে গতকাল উদ্বোধনী জুটিতে মোহাম্মদ নাইমের সাথে ইনিংস শুরু করেন মেহেদী হাসান। প্রথম ৪ ওভারে বাংলাদেশকে ৩৫ রান এনে দেন নাইম-মেহেদী। পঞ্চম ওভারের তৃতীয় বলে দলীয় ৪২ রানে মেহেদীকে থামান স্পিনার অ্যাস্টন টার্নার। আউট হওয়ার আগে ১২ বলে ১৩ রান করেন তিনি। সাকিব আল হাসানকে নিয়ে দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে সতর্কতার সাথে স্কোর বাড়ানোর চেষ্টা করেছেন নাইম। কিন্তু বেশি দূর যেতে পারেননি তারা। নবম ও দশম ওভারে আউট হন এই দুই ব্যাটসম্যান। ১টি করে চার-ছক্কায় ২৩ বলে ২৩ রান করে ড্যান ক্রিস্টিয়ানের শিকার হন নাইম। আর ২০ বলে ১১ রান করে অস্ট্রেলিয়ার স্পিনার এডাম জাম্পার শিকার হন সাকিব। ফলে ৬০ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে বাংলাদেশ। ব্যাট করতে নেমে ভালো করতে পারেননি মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। ১৪ বলে ১৯ রান করে আগারের শিকার হন তিনি। সৌম্যর সাথে ২১ বলে ২৪ রান করেন রিয়াদ। ওপেনিংয়ে টানা ব্যর্থতার পর গতকাল ভালো করার সুযোগ ছিল সৌম্যর সামনে। কিন্তু ক্রিস্টিয়ানের বলে আউট হওয়ায় বেশি দুর যাওয়া হয়নি তার। ১৮ বলে ১৬ রান করেন তিনি। ছয় নম্বরে নামা নুরুল হাসান সুবিধা করতে পারেননি। নাথান এলিসের বলে আউট হওয়ার আগে ১৩ বলে ৮ রান করেন তিনি। ফলে ১১০ রানে বাংলাদেশ হারায় ষষ্ঠ উইকেট। এরপর আরো কোন ব্যাটসম্যান ভালো করে দলকে এগিয়ে নিতে পারেনি। শেষ ১৪ বলে মাত্র ১২ রান তুলে বাংলাদেশ। ১১ বলে ১টি ছক্কায় ১০ রান করে এলিসের দ্বিতীয় শিকার হন আফিফ হোসেন। ৮ বলে ১টি চারে ৪ রান করে অপরাজিত ছিলেন মোসাদ্দেক। এতে ৮ উইকেটে মোট ১২২ রান টাইগাররা। অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে এলিস ও ক্রিস্টিয়ান ২টি করে উইকেট নেন।

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন

ষোড়শ এশিয়া কাপের পর্দা উঠছে আজ
হোয়াইটওয়াশ এড়াতে আজ মাঠে নামছে বাংলাদেশ
ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা তামিমের
হঠাৎ সংবাদ সম্মেলনের ডাক তামিমের, আসতে পারে বড় ঘোষণা
আফগানদের বিপক্ষে বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ
ফাইনালে ভারতের সঙ্গে পারল না বাংলাদেশের মেয়েরা

আরও খবর